চলো স্বপ্ন ছুঁইয়ের পক্ষ থেকে দেশবাসীকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা

আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন “চলো স্বপ্ন ছুঁই” নামের রংপুর জেলার একটি সেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও কার্যনির্বাহী পরিষদের সভাপতি মো: মুহতাসিম আবশাদ (জিসান)।সকলকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা। ঈদ মোবারক।

কোরবানির পর পশুর রক্ত ও তরল বর্জ্য খোলা স্থানে রাখা যাবে না৷ এগুলো গর্তের ভেতরে পুঁতে মাটিচাপা দিতে হবে৷ কারণ, রক্ত আর নাড়িভুঁড়ি কয়েক ঘন্টার মধ্যেই দুর্গন্ধ ছড়ায়৷ আর যদি রক্ত মাটি থেকে সরানো সম্ভব না হয়, তা হলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে৷ কোরবানির বর্জ্য পলিথিনে রেখে দিতে হবে, যাতে ময়লা পরিবহন দ্রুততার সঙ্গে করা যায়৷ যাঁরা পলিথিন পাবেন না, তাঁরা এ রকম পলিথিন কিনে ময়লা রাখতে পারেন৷ যেসব এলাকায় ময়লার গাড়ি পৌঁছানো সম্ভব নয় বা দেরি হবে, সেসব স্থানে বর্জ্য পলিথিনের ব্যাগে ভরে ময়লা ফেলার নির্দিষ্ট স্থানে রাখতে হবে৷ পশুর হাড়সহ শক্ত বর্জ্য গুলোও পলিথিনে দিয়ে দেওয়া ভালো৷ নাড়িভুঁড়ি বা এ জাতীয় বর্জ্য কোনোভাবেই পয়:নিষ্কাশন নালায় ফেলা যাবে না৷ যাঁরা চামড়া কিনবেন, তাঁরা কোনো বদ্ধ পরিবেশে চামড়া পরিষ্কার না করে এমন খোলামেলা স্থানে করতে পারেন, যেখানে ময়লা জমে দুর্গন্ধ হবে না৷ আর চামড়ার বর্জ্য গুলোও অপসারণের জন্য জমিয়ে রাখতে হবে৷ কোরবানির পশুর বর্জ্য নিজের উদ্যোগে পরিষ্কার করাই ভালো৷

সরকার একটি সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তুলতে না পারলেও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় আমাদেরকেই এগিয়ে আসতে হবে। তাই আসন্ন কোরবানিতে গরুর গোবর, আবর্জনা, কোরবানির পশুর উচ্ছিষ্ট গন্ধ ছড়ানোর আগেই পরিষ্কার করতে হবে। আমাদের এলাকা আমাদেরকেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে ও অন্যদেরকেও উদ্বুদ্ধ করতে হবে।