পঞ্চগড়ে ইউপি চেয়ারম্যান এর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

পঞ্চগড়ের তেতুঁলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত-ই-খুদা মিলন ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে কয়েকটি পরিবার । মিলন চেয়ারম্যান ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের অত্যাচারে নি:স্ব হচ্ছে একই উপজেলার আব্দুল হামিদ, আব্দুস সাত্তার ,মামুনুর রশিদ, আমেনা বেগম সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই অভিযোগ করেছেন ।

রবিবার বেলা ১১টায় পরিবারগুলো শহড়ের বানিয়াপাড়া রিপোটার্স ক্লাবে সাংবাদিকদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এ সময় আব্দুল হামিদ বাংলাবান্ধায় তার এক একর জমি মিলন চেয়ারম্যান জোরপূর্বক দখল করার জন্য সন্ত্রাসী কায়দায় প্রতিনিয়ত আমাকে হত্যা গুম খুন এবং জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে । এমনকি সেই জমি মিলন এর কাছে বিক্রি না করলে আমার বসতবাড়িতে আগুন দিবে বলে প্রতিদিনই তার সাঙ্গপাঙ্গরা মিলন চেয়ারম্যান এর নির্দেশে অত্যাচার নিপীড়ন চালাচ্ছে। পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার,তেতুঁলিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং বিভাগীয় কমিশনার বরাবর অভিযোগ করেও আজ পর্যন্ত কোন প্রতিকার পাইনি। মিলন চেয়ারম্যান ও তার দোসররা প্রভাবশালী এবং সরকারী দলের হওয়ায় বর্তমানে তাদের ভয়ে এলাকার জমির মালিকরা মুখ খুলছেনা। আমি মিলন এহেন অত্যাচারে অতিষ্ঠ আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি আমি মিলন চেয়ারম্যান ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের অত্যাচার হতে বাঁচতে চাই । মিলন চেয়ারম্যান সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান রেজাউল করিম শাহিন এর যোগশাজেশে এর আগে আমার কাছ থেকে ভুয়া জমি দেওয়ার নাম করে পাঁচ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। আব্দুল হালিমের স্ত্রী আমেনা কান্নাজড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের আমরা মিলন চেয়ারম্যান এর কাছথেকে আর কত অত্যাচার সহ্য করবো এই শেষ সম্বল বাংলাবান্ধায় এক একর জমিটুকু যদি কেড়ে নেয় তাহলে আমাদের পথে বসতে হবে। আমি চার সন্তান কে নিয়ে কোথায় যাবো।

সংবাদ সম্মেলনে আব্দুস সাত্তার নামে আরেক এলাকাবাসী আব্দুস সাত্তার জানান শুধু আমার নয় এলাকার আরো অনেকের জমি নামমাত্র দামে মিলন চেয়ারম্যান জোর করে ক্রয় করার হুমকি দিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে একই এলাকার মামুনুর রশিদ জানালেন তার ক্ষোভের কথা জানালেন নিজের বাবদাদার আমলের জমিতেও যেন আমরা যেতে না পারি সেজন্যও আমাদের হুমকি দিচ্ছে মিলন চেয়ারম্যান । সংবাদ সম্মেলনে পঞ্চগড় জেলার প্রিন্ট ইলেক্ট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন।