ভূয়া ডলার প্রতারক চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলায় ভুয়া ডলার বিক্রেতা চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পঞ্চগড় ডিবি পুলিশ।

পুলিশ প্রশাসন সূত্রে জানাযায় দেবীগঞ্জ উপজেলার পামুলি ইউনিয়নে গোপন সংবাদ এর ভিত্তিতে গত ২০ আগস্ট ভোর রাতে কৌশলি অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে ডিবি পুলিশ । এই ঘটনায় ডলার ক্রয় করতে আসা ঝিনাইদাহ জেলার ইমরান হোসেন বাদি হয়ে নয়জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন ।

এব্যাপারে ইমরান এর সাথে মোবাইলে কথা বললে তিনি জানান আমার বাড়ি ঝিনাইদাহ জেলার কালিগঞ্জ থানায় তার ব্যাবসায়িক বন্ধু নয়ন গত কিছুদিন আগে ইমরান কে বলে পঞ্চগড় জেলার বাংলাবান্ধায় একটি (ইউএস) ডলার এর বিটকেস কুড়িয়ে পেয়েছে। আমার বন্ধু ডলারগুলো কমদামে বিক্রি করবে এবং ইমরানকে পঞ্চগড়ে আসতে বলে ডলারগুলো ক্রয়ের জন্য। ইমরান ও তার ব্যাবসায়িক বন্ধু খয়রুল কে নিয়ে গত ১৯ আগস্ট সোমবার পঞ্চগড়ে আসে ডলার ক্রয়করার জন্য। প্রতারক চক্রের একজন সদস্য দেবীগঞ্জ হতে পামুলি ইউনিয়নের জাহাঙ্গির এর বাড়িতে নিয়ে আসে এবং ইমরান ও সেই বাসায় অপেক্ষা করতে বলে। সোমবার সারাদিন অপেক্ষার পর একটি ডলার এর বিটকেস নিয়ে এসে দেখানোর পর ডলার না দিয়ে ইমরান ও খায়রুল এর কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। এরপর প্রতারক চক্রের সদস্যরা তাদের কে হুমকি দিয়ে টাকা কিংবা কোন কিছুই দিবনা বরং তোমাদের পুলিশে দিবো। সে সময় প্রতারক চক্রের অন্য সদস্যরা পুলিশ পরিচয়ে ইমরান ও খায়রুল কে বলে তোমাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ পরিচয়ে অন্য সদস্যরা বলছে তোমরা এখান থেকে না যাও তাহলে মামলা দিব। সে সময় উৎ পেতে থাকা জাহাঙ্গিরের বাসায় পঞ্চগড় ডিবি পুলিশ সঙ্গীয়ফোর্স সহ অভিযান চালায় । এবং জাহাঙ্গিরের বাসা থেকে প্রতারক চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করে।

ডিবি পুলিশের উপ পরিদর্শক রাজা মিঞা সাংবাদিকদের জানান আমরা সুকৌশলে এই অভিযান পরিচালনা করেছি ,পূর্বথেকেই মামলার বাদি আমাদের সাথে যোগাযোগ করেছিল । প্রতারক চক্রের মূল হোতা আনোয়ার হোসেন (৩৮) ও জুলফিকার আলি (৩৫) কে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। গ্রেফতারকৃতরা ডিবি পুলিশের কাছে প্রতারক চক্রের আরো সাত জনের নাম প্রকাশ করেছে। প্রতারক চক্রের সকল সদস্যের বাড়ি পঞ্চগড় জেলায় সেই সাতজনকে মামলায় আসামি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এবং আদালতের কাছে রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। তবে হাতিয়ে নেওয়া পাঁচ লাখ টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি । কারন প্রতারক চক্রের বাকি সাতজন পালিয়ে গেছে। পঞ্চগড়ে এই রকম অভিযান পরিচালনা করেছি বলে আমার মনে হয়না ।আমরা এইসব অভিযান পঞ্চগড়ে অব্যাহত রাখবো।