প্রতারণার শিকার ৩৭ হজযাত্রী, টাকা নিয়ে উধাও মুয়াল্লিম

পঞ্চগড়ে প্রতারণার শিকার হয়ে হজে যাওয়া হলো না ৩৭ মুসল্লির। হজে পাঠানোর কথা বলে কোটি টাকা হাতিয়ে উধাও হয়েছে দালালচক্র।  এ নিয়ে রোববার পুলিশ প্রশাসনসহ জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

জানা গেছে, পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ, বোদা, আটোয়ারী ও সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ৩৭ ব্যক্তি হজে যাওয়ার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন। উপজেলা সদরের টুনিরহাট এলাকার ওয়াছেদ আলী নামের কথিত এক মুয়াল্লিমের কাছে দুই থেকে তিন লাখ টাকা করে জমাও দেন তারা। টাকা নেওয়ার সময় তাদের প্রাক-নিবন্ধন করা হলেও চূড়ান্ত নিবন্ধনের সময় টালবাহানা শুরু করেন ওয়াছেদ আলী। এরপর মুসল্লিরা তাকে চাপ দেন এবং কয়েকবার তার বাড়ি পর্যন্ত যান। অবস্থা বেগতিক দেখে পালিয়ে যান প্রতারক ওয়াছেদ।

ভুক্তভোগী মুসল্লিরা জানান, চাহিদামতো টাকা দিয়েও হজে যেতে না পারায় তারা মর্মাহত। দিশেহারা হয়ে কয়েকদিন ধরে তারা পুলিশ প্রশাসন, জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরছেন।

জেলা শহরের রাজনগর এলাকার শহিদুল ইসলাম বলেন, হজে যাওয়ার আশায় কষ্ট করে টাকা দিয়েছিলাম। রসিদের মাধ্যমে সে টাকা নেয়। আমাদের মধ্যে অনেকে গরু বিক্রি করে, কেউ কেউ জমি বেচেও টাকা দিয়েছেন। এখন শুনছি, আমাদের রেজিস্ট্রেশন হয়নি। হজে যেতে পারব না। আমাদের কোটি টাকা নিয়ে ওয়াছেদ এখন উধাও। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দিয়েছি।

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে কথিত মুয়াল্লিম ওয়াছেদ আলীর মোবাইল নম্বরে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা বন্ধ পাওয়া গেছে।

জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, বিষয়টি নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করা হয়েছে।  কিন্তু সময়মতো নিবন্ধন না হওয়ায় তাদের জন্য এ মুহূর্তে কিছুই করা যাচ্ছে না।  তবে তাদের টাকা উদ্ধারে সহায়তার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।  পাশাপাশি আইনি সহয়তা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।