ডোমারে বাড়ীর সিমানায় ঘর তোলাকে কেন্দ্র করে মারপিট, আটক ৪।

নীলফামারীর ডোমারে বাড়ীর সীমানা ঘেঁসে ঘর তোলাকে কেন্দ্র করে মারপিটের ঘটনায় ২জন গুরুত্বর আহত হয়েছে। এ ঘটনায় মহিলাসহ ৪জনকে আটক করেছে ডোমার থানা পুলিশ।

মামলা সুত্রে জানা যায়, ডোমার পৌর এলাকার ২নং ওয়ার্ডের বড় রাউতা মুন্সিপাড়া এলাকার মৃত মোকলেছার রহমানের বসত ভিটা সিমানা ঘেঁষে প্রতিবেশী মৃত ছমরত মামুদের ছেলে শফিকুল, সামসুদ্দিন ঘড় নির্মাণ করে। এ বিষয়ে মৃত মোকলেছার রহমানের পরিবারের লোকজন বঁাধা নিষেধ করে। এতে করে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয়।

এরই জের ধরে ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার (১০অক্টোবর) দুপুরে মৃত মোকলেছার রহমানের ছেলে সোহাগ বাড়ী থেকে ডোমার বাজার যাওয়ার পথে শফিকুল, সামসুদ্দিন তারা তাদের দলবল নিয়ে অর্তকিত হামলা চালিয়ে লাঠি শোঠা দিয়ে সোহাগকে বেধরক মারপিট করে গুরুত্বর আহত করে। সোহাগকে বাচঁাতে তার স্ত্রী, মা ও বোন এগিয়ে গেলে বিবাদীগণ তাদেরকেও মারপিট করে। তাদের আঘাতের ফলে সোহাগ ও তার বোন ময়না গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে পরে। এলাকাবাসী বিবাদীগণের কবল থেকে তাদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। সংবাদ পেয়ে ডোমার থানার এসআই আজম হোসেন প্রধান ও সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনা স্থলে গিয়ে মহিলা সহ ৪জনকে আটক করে। আটককৃতরা হলেন, সামসুদ্দিনের ছেলে আরমান (২২), শফিকুলের ছেলে শুভ (২২), অলিয়ার রহমানের ছেলে জুলফিকার আলী (২২) ও কাজলের স্ত্রী মেহের বানু (৩০)।

এ বিষয়ে সোহাগের বোন ময়না বেগম বাদী হয়ে ১৩জনকে আসামী করে ডোমার থানার মামলা নং-০৮, তারিখ-১০/১০/২০১৯ইং দায়ের করে। ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মামলায় এজাহার ভুক্ত ৪জনকে আটক করে শুক্রবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।