কুড়িগ্রাম সীমান্তহাটের ভারত-বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা কমিটির যৌথ সভা অনুষ্ঠিত

কুড়িগ্রামের রাজিবপুরে সীমান্ত হাটে ভারত-বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা কমিটির যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার দুপুরে রাজিবপুর উপজেলা শহর থেকে ৩কিলোমিটার দুরে বালিয়ামারী সীমান্ত অংশে এবং ভারতের মেঘালয় রাজ্যের পশ্চিম গারোহিল জেলার কালাইয়েরচর নামক স্থানে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পক্ষে জেলা প্রশাসক মোছাঃ সুলতানা পারভীন, ৩৫ বিজিবি পরিচালক লেফটেনেন্ট কর্নেল এস এম আজাদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেনহাজুল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেদী হাসান। অন্যদিকে ভারতের পক্ষ্যে সাউথ ওয়েষ্ট গাড়ো হিলস আমপাতি জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট শ্রীরাম কুমার এস আই এস, পুলিশ সুপার রিতুরাজ রাভির নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল।
সভায় হাট বসানোর দিন ১দিন থেকে বৃদ্ধি করে সপ্তাহে সোমবার ও বুধবার করা হয়। হাটের সময়সীমা সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টার পরিবর্তে বিকেল ৩টা পর্যন্ত করা হয়। এছাড়া বিজিবি-বিএসএফ’র জন্য অস্থায়ী শেড নির্মান, বিক্রয়যোগ্য পন্যের প্রকারভেদ বাড়ানো, হাট রক্ষনাবেক্ষন ও বিক্রয় ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়।
প্রায় সাড়ে ৩ বছর পর দুদেশের সীমান্ত হাট ব্যবস্থাপনা কমিটির যৌথসভা অনুষ্ঠিত হল। হাটে নির্দ্ধারিত আইডি কার্ডের মাধ্যমে বাংলাদেশের ২৫ জন বিক্রেতা ও ৬১৪ জন ক্রেতা এবং ভারতের ৫০জন বিক্রেতা ও ৩৫৯ জন ক্রেতা পন্য কেনাবেচা করতে পারেন।
কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক মোছা: সুলতানা পারভীন বলেন, রাজিবপুর উপজেলার বালিয়ামারী সীমান্ত হাটে অনেক দিন পর দু’দেশের যৌথ মিটিং হলো। আমরা এই মিটিংয়ে হাটের সমস্যা দুর করতে গুরুত্বপুর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সীমান্ত হাট শুধু সপ্তাহে একদিন হলেও দুই দিন করা সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এই সীমান্ত হাটে এখন থেকে বাংলাদেশে উৎপন্ন হওয়া ৭৯টি আইটেম ব্যবসায়ীরা বিক্রি করতে পারবে।