জলঢাকা-আলোর কণা সামাজিক সংগঠন!এখন আলোর পথে

নীলফামারীর জলঢাকার সামাজিক সংগঠন আলোর কণা”নিরক্ষরতা দুরীকরন সহ সামগ্রিক সামাজিক উন্নয়নে এখন  ভুমিকা রেখে চলছে আলোর পথে।সেই ২০১৩সালে ৫ জন ছাত্র/ছাত্রী কে নিয়ে আলোর সন্ধানে সামাজিক অবদান রাখতে যাত্রা শুরু করেছিল প্রতিষ্ঠানটি।যা বর্তমানে প্রায় ১ হাজার -জনে পৌচেছে।সমাজের সামাজিক অবক্ষয় দুরীকরনে দৃপ্ত চেতনায় তৃপ্ত শপথ আলোর কণার পরিচালক ফুরাদ হোসেনের।নিজ শিক্ষার পাশা-পাশী দারীদ্রপীরিত পরিবারের সন্তানদের শিক্ষায় সু শিক্ষিত করতে পেরেছে ফুরাদ।অজোঁপাড়া গাঁ জলঢাকা পৌরসভাধীন দুন্দিবাড়িতে এর কার্যক্রম চালু হয়।শিক্ষার্থীদের উৎসব মুখর পরিবেশে পাঠ্যদান হয় নিত্যদিন।শিক্ষক সংখ্যাও ১৯ জন।যারা এখানকার শিক্ষক তারা সকলেই জলঢাকা সরকারী কলেজের ছাত্র এবং ছাত্রী।  গোটা উপজেলায় এর ১১ টি পাঠ্য কেন্দ্র রয়েছে। যেখানে ফ্রি তে পাঠদান হয়।এছাড়াও চলমান রয়েছে মাসিক ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প,মাসিক কুইজ প্রতিযোগীতা,সাপ্তাহিক কুইজ প্রতিযোগীতা,রচনা ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগীতা,আবৃতি প্রতিযোগীতা,বইপড়া প্রতিযোগীতা, সঙ্গীত প্রতিযোগীতা,সুন্দর হাতের লেখায় পারদর্শীতা,সাপ্তাহিক ভাবে গুনীজন দ্বারা ভাল মানুষ হতে উৎসাহ প্রদান, মানবতার দেয়াল,গ্রন্থাগার ও সততা ষ্টোর,শিক্ষার বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচী, আলোর কণা”র প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ফুরাদ হোসেন বলেন,২০১২ সালে প্রতিষ্ঠানটি স্থাপিত করার পর ২০১৫ সালে আমার সকলস্থরের বন্ধুদের সাথে নিয়ে আলোর কণার ফ্রি পাঠদান কর্মসূচী সফলকরার যে সব কার্যক্রম চলমান রয়েছে তা একসময় দুন্দিবাড়ির মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল যা আজ গোটা উপজেলায় বিস্তৃত। বাংলাদেশ সরকার আলোর কণা কে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিলে আলোর কণা শুধু জলঢাকা নয়,জেলা কিংবা বিভাগে এর কার্যক্রম ছড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হবে। শিক্ষিকা আতিকা আক্তার, লিপছি আক্তার আকলিমা আক্তার, শিক্ষক তুহিন ইসলাম,সাজু ইসলাম, জানান,আমরা এখানে পাঠদান দিতে পেরে নিজেদেরকে গর্বিতবোধ মনে করছি।নিরক্ষরতা দুরীকরনে স্বাক্ষর রাখছে আলোর কণা”।
শিক্ষার্থী আখিঁ, রহিমা,সাকিব,পিংকি, দীপ্তি রানী, মোস্তাকিন,মানিক, বলেন আমরা শিক্ষালাভে অনেকটা এগিয়ে,মান সম্মত পাঠদান সহ নানান কিছু শিখেছি। অভিভাবক সাইফুল ইসলাম ও মিজান জানিয়েছেন অর্থ ছাড়াই  আমাদের সন্তানরা যে শিক্ষালাভ করেছে আমরা তাতে ধন্য। এলাকার গুনী ব্যাক্তিত্ব ছাইদুল ইসলাম পিকু বলেন, এ পাঠশালা গুনগতমানের ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের ভান্ডার যে আলো ছড়াচ্ছে পুরো উপজেলায়।প্রতিষ্ঠানটির প্রতি সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজাউদ্দৌলা সুজা,মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক,প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নুর মোহাম্মদ ছাড়াও বিভিন্ন কর্মকর্তাবৃন্দ।