বগুড়ায় কোরবানীর চামড়ার চেয়ে সিগারেটের মূল্য বেশি

সারা দেশের ন্যায় বগুড়ার শিবগঞ্জেও কোরবানী পশুর চামড়ার দাম এক প্যাকেট ব্যানসন সিগারেটের চেয়েও কম। ইয়াতিমদের হক মেরে দিয়েছে মধ্যস্বত্ত্বভোগী চামড়া ব্যাসায়ীরা।
ঈদের দিন উপজেলার আলীগ্রাম, ভাইয়েরপুকুর, বুড়িগঞ্জ, মোকামতলা, রহবল, এনায়েতপুর, অভিরামপুর, গুজিয়া, ময়দানহাট্টা, কিচক, মহাস্থান ও শিবগঞ্জ পৌর এলাকা ঘুড়ে দেখা যায়, পানির দরে বিক্রি হয়েছে কোরবানী পশুর চামড়া। সরকারের নির্ধারিত মূল্য তো দূরের কথা এর আশেপাশের মূল্যও পাচ্ছেন না বিক্রেতারা। অনেকেই চামড়া বিক্রি করতে না পেরে স্থানীয় মসজিদ-মাদ্রাসায় দান করে দিচ্ছেন। লক্ষাধিক টাকা দামের গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে মাত্র দুইশ থেকে পাঁচশ টাকায়। ছোট গরুর চামড়ার কেউ সহজে দামই করতে চায়নি। আর ছাগলের চামড়া কেনা হচ্ছে ২০ থেকে ৫০ টাকায়। আলীগ্রামের বাসিন্দা রানা জানায়, আমরা ৭ ভাগে ৬৭ হাজার হাজার টাকা দিয়ে গরু কুরবানী দিয়েছিলাম চামড়া বিক্রি করেছি ৫০০ টাকা।
একই এলাকার শাপলা, কালাম, আনারুল বলেন, আমরা বাড়ির ছাগল কোরবানী দিয়েছিলাম তার চামড়া বিক্রি করেছি ২০টাকা করে।
এনায়েতপুর গ্রামের বাসিন্দা সাংবাদিক মিজান এ প্রতিবেদককে জানায়, আমাদের গ্রামের ৯৬ হাজার টাকার কোরবানীর গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে মাত্র চারশত টাকা।একই অবস্থা সারা উপজেলায় পরিলক্ষিত হয়েছে। চামড়া ব্যবসায়ী সুলতান ও একাব্বর বলেন, এবার চামড়ার বাজার নেই বললেই চলে আমরা বড় গরুর চামড়া ৩০০-৫০০ টাকা ও মাঝাড়ি গরুর চামড়া ১০০-২০০টাকা ও ছাগলের চামড়া ২০-৫০টাকায় ক্রয় করেছি। সরকারের নির্ধারণ করা দাম অনুযায়ী, এবার গরুর কাঁচা চামড়ার দাম ঢাকায় প্রতি বর্গফুট ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। ঢাকার বাইরে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। সারাদেশে খাসির চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি বর্গফুট ১৮ থেকে ২০ টাকা এবং বকরির চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয় প্রতি বর্গফুট ১৩ থেকে ১৫ টাকা। ইয়াতিম ও মিসকিনদের হক এবারও চলে গেলো ব্যবসায়ী ও মধ্যেস্বত্ত্বভোগীদের পকেটে।
গুজিয়া হাফেজি মাদ্রাসার মুহতামিম মাসুম আহমেদ বলেন, শেষ জামানার আলামত চলে এসেছে। ইয়াতিম ও মিসকিনদের অধিকার নিয়ে বিত্তবানরা চিনিমিনি খেলছে।এবিষয়ে জানতে চাইলে শিবগঞ্জের বিভিন্ন বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতারা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বলেন, আমাদের কিছু করার নেই। আমরা এবার কোরবানীর চামড়া কেনা বেঁচায় হতাশ হয়েছি। তবে সচেতন ও বিবেকবান একটি মহল বলছেন, সিগারেটের দাম চামড়ার দামের তুলনায় বেশি।সরকারের উদাসিনতাই এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। জনগন অনেক ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি হয়ে পরেছে।