বেরোবিতে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বেরোবি ছাত্রলীগের আল্টিমেটাম

বেগম রোকেয়া  বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) বহিরাগতদের হামলা-হয়রানী বন্ধ করে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিতে আল্টিমেটাম দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। মঙ্গলবার (১৮ সেপ্টেম্বর)  রাত সাড়ে আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাথে বহিরাগত (স্থানীয়) ছাত্রলীগের সংঘর্ষ শেষে এ আল্টিমেটাম দেন নেতারা। এসময়  স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল আজম ফাইনের  নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট ও শিক্ষার্থীদদের জান-মালের ক্ষতির অভিযোগ তোলেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া ও সেক্রেটারি নোবেল শেখ।
বিভন্ন সূত্রে জানা যায়, গত ২১ শে আগস্ট আবাসিক হলগুলোতে গিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাঙচুরের  মামলায় গ্রেফতারের ২২ দিন পর জামিনে বেরিয়ে এসে আজ রাত আটটায় বহিরাগত দল-বল নিয়ে দেশিয় অস্ত্রনিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে হামলা চালায়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তুলে তাদের ধাওয়া দেয়। এসময় দুপক্ষের অনেকেই দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মুখোমুখি অবস্থান নেয়। পরে তাজহাট থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।
পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি তুষার কিবরিয়ার নেতৃত্বে হল থেকে প্রায় চার শতাধিক শিক্ষার্থীকে সাথে নিয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির সামনে এসে বহিরাগতদের ক্যাম্পাসে হামলার অভিযোগ তুলে আজ রাতের মধ্যে তাদের গ্রেফতার করা না হলে আগামীকাল থেকে সকল ক্লাশ পরীক্ষা বন্ধের আল্টিমেটাম দেয়।
এবিষয়ে তাজহাট থানার অফিসার ইনচার্জ  ( ওসি)  শেখ রোকোনুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পরিস্থিতি অস্থিতিশীল হলে তাজহাট থানা পুলিশ তা নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ছাত্রলীগের আল্টিমেটামের বিষয়ে তিনি বলেন, এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন দেখবে। এবিষয়ে কোন সহযোগীতা চাইলে পুলিশ প্রস্তুত আছে।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আতিউর রহমান  বলেন, আমি বাইরে আছি। ক্যাম্পাসে গিয়ে পরিস্থিতি দেখে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।