বেরোবিতে সেই কর্মচারীর বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি

বেরোবি, রংপুর: বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি নূর আলমের বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে উল্লেখ করা হয়, কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি নূর আলম বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে যোগদান করলেও তিনি তার পদবি গোপন রেখে ল্যাব এটেন্ডেট হিসাবে বিশ্ববিদ্যালয় কোষাগার থেকে বড় অঙ্কের টাকা আত্মসাৎ করেন। প্রতিবেদনগুলো প্রকাশের পর ক্যাম্পাসে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়।
বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখপাত্র তাবিউর রহমান প্রধান জানান, পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। দাপ্তরিক নথিপত্র পর্যালোচনা করে এর প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। বিষয়টি অধিকতর তদন্তের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আল মাহবুবকে আহ্বায়ক এবং উপ-রেজিস্ট্রার আব্দুল হাকিমকে সদস্য সচিব করে একটি ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অপর সদস্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক সানজিদ ইসলাম খান। কমিটিকে নূর আলম মিয়ার পারিতোষিক উত্তোলন সংক্রান্ত অনিয়ম ও অসঙ্গতি তদন্ত করে যথা শিগগির বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার আবু হেনা মোহাম্মদ মোস্তফা কামালের নিকট তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।
এ দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি নূর আলম মিয়াকে গণিত বিভাগের অধ্যাপক প্রবীণ শিক্ষক আর এম হাফিজুর রহমান সেলিমকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশালীন ও আপত্তিকর মন্তব্য করার অপরাধে ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে।