বেরোবিতে পাল্টাপাল্টি মিছিল-মানবন্ধনে উত্তেজনা

নাজমুল হুদা নিমু,বেরোবি করেসপন্ডেন্ট; রংপুর: বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি)  উপাচার্যপন্থী শিক্ষক-শিক্ষার্থীর ও কর্মকর্তা ও আন্দোলনরত কর্মচারীদের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে উত্তেজনা বিরাজ করছে। সোমবার (২৯ জুলাই) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ রাসেল মিডিয়ে চত্তরে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন চলাকালীন উপাচার্যপন্থী শিক্ষক-শিক্ষার্থীর ও কর্মকর্তারা মৌন মিছিল বের করলে উত্তেজনা শুরু হয়।
 পাল্টাপাল্টি আন্দোলনে ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীল অবস্থা বিরাজ করছে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, আন্দোলনরত কর্মচারীদের কয়েকজনকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার প্রতিবাদে সোমবার দুপুরে প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন। মিছিলটি ক্যাম্পাসের রাসেল চত্ত্বরে শেষ করে সেখানেই মানববন্ধনে দাড়ান আন্দোলনরত কর্মচারীরা। একই সময়ে উপাচার্যপন্থী শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তারা কর্মচারীদের আন্দোলনের প্রতিবাদে মৌন মিছিলের চেষ্টা করলে সেখানে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে উভয় পক্ষের সিনিয়রদের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।
কর্মচারীদের দাবিগুলো হলো ৫৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বকেয়া বেতন পরিশোধ, নীতিমালা প্রনয়ন ও সময় মতো পদোন্নতি। এসব দাবিতে এক মাস ধরে আন্দোলন করলেও কর্তৃপক্ষ তাদের দাবি বাস্তবায়ন করছেন না বলে কর্মচারী সমন্বয় পরিষদের মূখপাত্র রবিউল ইসলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থিতিশীল পরিস্থিতিতেও উপাচার্য-রেজিস্ট্রারসহ উর্ধবতন দায়িত্বশীল ব্যক্তিগণ ক্যাম্পাসে না আসায় একাডেমিক, প্রশাসনিক কর্মকান্ড স্থবির হয়ে পড়েছে। বন্ধ রয়েছে বিভিন্ন বিভাগের পরীক্ষার কার্যক্রম।
কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি নুর আলম  বলেন, ‘আমারা আমাদের যৌক্তিক দাবি নিয়ে মানবন্ধনে দাড়িয়েছিলাম। সেখান থেকে প্রেসার ক্রিয়েট করে আমাদেরকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আতিউর রহমানের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এই মুহুর্তে কথা বলার মত অবস্থায় নেই বলে জানান
উল্লেখ্য,  টানা ৩৮ দিন থেকে ৩ দফা দাবিতে প্রশাসনিক ভবনে তালা, লাগাতার কর্মবিরতি, বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ, মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী সমন্বয় পরিষদ।